Wednesday, October 5, 2022

টমাস আলভা এডিসনের জীবন কাহিনী

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সকলে অনেক ভালো আছেন। আপনাদের কে আমাদের এই সাইটে আমার পক্ষ থেকে জানাই স্বাগতম। আজকের পোস্ট এ আমি আপনাদের সাথে টমাস আলভা এডিসনের সম্পর্কে কথা বলবো। তো চলুন দেরি না করে পোস্ট টি শুরু করে দেওয়া যাক।

 

টমাস আলভা এডিসনের জীবন কাহিনী

আমাদের সবার বড় দোষ হার মেনে নেওয়া। সফল হওয়ার সর্বোত্তম উপায় হল আবার চেষ্টা করা এবং আবার চেষ্টা করা। এমনটাই বলেছেন আলোর বাল্বের উদ্ভাবক টমাস আলভা এডিসন। আলভা এডিসন ১০০০ টিরও বেশি ব্যর্থতার পরে আলোর বাল্ব আবিষ্কার করেছিলেন।

তিনি ১১ ফেব্রুয়ারি, ১৮৪৭ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে জন্মগ্রহণ করেন। অ্যাডিসন ছিলেন তার পিতামাতার কনিষ্ঠ সন্তান। আসক্তি তার স্কুলে পড়া শুরু করার কিছুক্ষণ পরে, এডিসনের নাম নিয়ে অভিযোগ উঠতে শুরু করে কারণ অ্যাডিসন স্কুল শিক্ষকদের এমন অনেক প্রশ্ন করতেন যে শিক্ষকরা উত্তর দিতেন না।

বাইরের সবাই এডিসনকে পাগল বলত কারণ সে বলেছিল পাখিরা যদি আকাশে উড়তে পারে তাহলে মানুষ কেন পারবে না। এডিসন একবার বলেছিলেন যে পাখিরা পোকামাকড় খায় তাই তারা আকাশে উড়তে পারে। পরীক্ষা করার জন্য এক জায়গায় পোকামাকড় থেকে রস তৈরি করে বন্ধুকে খাওয়ালেন। তার বন্ধু উড়তে পারে কিনা দেখতে।

কিন্তু তার বন্ধু অসুস্থ হয়ে পড়ে। তখন এডিসনকে অনেক অপমান সহ্য করতে হয়। কয়েকদিন পর এডিসন স্কুল থেকে ফিরে তার মাকে একটি চিঠি দেন। পড়তে গিয়ে মা কেঁদে এডিসনকে বললেন, শিক্ষক লিখেছেন, “আপনার ছেলে খুব বুদ্ধিমান এবং আপনার ছেলেকে পড়ানোর মতো এত ভালো শিক্ষক আমাদের কাছে নেই। তো এর জন্য আমরা এডিসনকে স্কুল এ আর রাখতে পারছি না।” এর পর থেকেই এডিসনের বাসায় মায়ের কাছে পড়াশোনা শুরু হয়।

 

টমাস আলভা এডিসনের অর্জন

মাত্র ১৫ বছর বয়সে, তিনি তার বাড়িতে একটি অ্যাপ্লিকেশন রুম তৈরি করেন এবং সেখানে কাজ শুরু করেন। এডিসন তার জীবদ্দশায় ১০০০ টিরও বেশি জিনিস আবিষ্কার করেছিলেন। কিন্তু তার মহান আবিষ্কার ছিল আলোর বাল্ব। আজ আমরা সন্ধ্যায় বাল্ব জ্বালাই।

কিন্তু আপনি কি জানেন? সংস্করণটি ১০০০ টিরও বেশি ব্যর্থতার পরে বাল্ব তৈরি করতে সফল হয়েছিল। কিন্তু তিনি কখনো হাল ছাড়েননি। ১৮৭৯ সালের ১২ অক্টোবর, ৩২ বছর বয়সে, তিনি বিশ্বের প্রথম আলোর বাল্ব জ্বালিয়েছিলেন। এডিসনকে যখন জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল ১০০০ বার হারার পরেও তিনি আবার কী করবেন? তিনি বলেন, কোনো কাজ না থাকায় আমি এক হাজার বার হেরেছি। তাই সাফল্য না পাওয়া পর্যন্ত হার মেনে নেওয়া উচিত নয়।

তখন অ্যাডিসন তার মায়ের বাড়িতে যায় এবং হঠাৎ তার সামনে সেই স্কুলের চিঠি টি পড়ে। তারপর সে সেটি পড়ে। স্কুলের চিঠিতে লিখা ছিলো যে, “আপনার ছেলে মানসিকভাবে সুস্থ নয় তাই তাকে আমরা আমাদের স্কুলে রাখতে পারি না।”

এটা দেখে সে অনেক কেঁদেছিল। তিনি তখন লিখেছেন যে একজন মহান মা তার পাগল ছেলেকে বিশ্বের সেরা বিজ্ঞানী বানিয়েছেন। এটাই মায়ের শক্তি। ১৯৩১ সালের ১৮ অক্টোবর তিনি মারা যান। তার সম্মানে আমেরিকায় একদিনের জন্য আলো নিভিয়ে দেওয়া হয়। অ্যাডিসন বলেছিলেন যে আমি আমার জীবনে একদিন যে কাজটি করেছি তা ছিল আনন্দের।

 

তো বন্ধুরা আশা করি পোস্ট টি আপনাদের কাছে ভালো লেগেছে। ভালো লেগে থাকলে কিন্তু অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। আর এরকম পোস্ট পেতে প্রতিদিন ভিজিট করতে থাকুন আমাদের এই সাইট টি। আবার দেখা হবে পরবর্তী কোনো পোস্ট এ। সে পর্যন্ত সকলে ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন। আল্লাহ হাফেয।

Shihab
Shihabhttps://skytube.ml
নিজে যা জানি তা অন্যকে জানাতে ভালোবাসি আর্টিকেলের মাধ্যমে। বিভিন্ন ওয়েব সাইটে লেখালেখি করি.
RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here