অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট একাউন্ট খোলার নিয়ম

অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট একাউন্ট খোলার নিয়ম অনলাইন ইনকাম এর জগতে বর্তমানে অনেক মানুষ এফিলিয়েট মার্কেটিং করে প্রচুর টাকা ইনকাম করতেছে। এফিলিয়েট মার্কেটিং জগতে অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়। অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট জনপ্রিয় হওয়ার সবচেয়ে বড় কারন হলো বিশ্বের সবচেয়ে বড় ই-কমার্স কোম্পানি অ্যামাজন।

অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট একাউন্ট খোলার

প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ ডলার এর অ্যামাজন এর পণ্য বিক্রি হয়। এছাড়া অ্যামাজনে হাজার হাজার লোক কাজ করে। আপনি চাইলে অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট এর মাধ্যমে প্রতি মাসে লক্ষ টাকা ইনকাম করতে পারেন।

অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট একাউন্ট খোলার নিয়ম নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা  হল |

আরো দেখে আসতে পারেনঃ

টুইটার কি ? টুইটার একাউন্ট খোলার নিয়ম

অ্যামাজন অ্যাকাউন্ট খোলার নিয়ম

১. অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট একাউন্ট খোলার জন্য প্রথমে আপনারা এই ওয়েবসাইটে (http://www.amazon.com/) চলে যান। তারপর সেখানে গিয়ে নিচের দিকে become a affiliate অপশনে ক্লিক করুন।

২. তারপরে আপনি অ্যাফিলিয়েট একাউন্ট খোলার জন্য একটি ইন্টারফেস পাবেন। সেখানে আপনি সাইন আপ অপশন এ ক্লিক করুন।

৩. সাইন আপের জন্য প্রথমে আপনি আপনার ইমেইল এড্রেস দিন। ইমেইল এড্রেস দেওয়ার পরে আপনি একটি সঠিক পাসওয়ার্ড দিন। পাসওয়ার্ড দেওয়ার সময় অবশ্যই কিছু অক্ষর, কিছু নাম্বার, কিছু চিহ্ন ব্যবহার করবেন।

৪. তারপরে আপনি আপনার নাম দিন। আপনার নাম অবশ্যই জাতীয় পরিচয় পত্রের সাথে মিলিয়ে দিবেন। তবে আপনি চাইলে পরেও আপনার নাম পরিবর্তন করতে পারবেন।

৫. এখন আপনার ইমেইল এর মধ্যে একটি ভেরিফিকেশন কোড পাঠানো হবে। সেই কোডটি এখানে সঠিকভাবে এন্ট্রি করুন।

৬. কোড সঠিকভাবে বসানোর পরে আপনার নাম আবার সঠিকভাবে লিখুন। তারপরে আপনি আপনার এড্রেস সঠিকভাবে লিখে দিন। এড্রেস লেখার আগে অবশ্যই আপনি আপনার দেশ বাংলাদেশ সিলেক্ট করুন। তারপর আপনি বাংলাদেশের যে স্থানে থাকেন সেই স্থানের এড্রেসটি সঠিকভাবে উল্লেখ করুন।

৭. তারপর আপনি আপনার ওয়েব সাইট অথবা অ্যাপসের লিঙ্ক দিন। আপনার যদি ওয়েবসাইট বা অ্যাপস না থাকে, তাহলে আপনি আপনার ফেসবুক পেইজ বা সোশ্যাল মিডিয়ার প্রফাইল লিংক দিতে পারেন।

৮. তারপর আপনি আপনার স্টোর এড্রেসে একটি ইউনিক নাম দিন। একই দেওয়ার পরে আপনি যে বিষয় গুলো নিয়ে মার্কেটিং করতে চান সেই বিষয়গুলো সিলেক্ট করুন। তারপরে আপনার ওয়েবসাইট বা ব্যবসায় কতজন লোক কাজ করে সেটা সিলেক্ট করুন।

৯. সেটা সিলেক্ট করার পরে আপনি আপনার মার্কেটিং কিভাবে করবেন সেগুলো সিলেক্ট করে দিন।

সবকিছু সঠিক ভাবে পূরণ করলে আপনার অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট একাউন্ট তৈরি হয়ে যাবে। আগে অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট একাউন্ট তৈরি হওয়ার কয়েকদিন পরে অ্যাকাউন্ট অ্যাক্টিভ হতো। কিন্তু বর্তমানে অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট একাউন্ট সাথে সাথেই একটিভ হয়ে যায়। তাই আপনি চাইলে এখন থেকেই অ্যামাজনের পণ্য মার্কেটিং করে ইনকাম করতে পারবেন।

সব সময় চেষ্টা করবেন 20 ডলার এর উপরে প্রাইস এর পণ্য করল মার্কেটিং করার জন্য। এতে করে আপনার কমিশন ভালো পাবেন।

আরো দেখে আসতে পারেনঃ

পেওনিয়ার একাউন্ট খোলার নিয়ম 2022

অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট একাউন্ট এর শর্তাবলী

১. আপনাকে অবশ্যই সঠিক পরিচয় ব্যবহার করে অ্যামাজন অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। অ্যামাজন চাইলে আপনার পরিচয় ভেরিফাই করার জন্য আপনার থেকে আইডি কার্ড চাইতে পারে।

২. উল্টাপাল্টা কোন ভাবে অন্যের মার্কেটিং করতে পারবেন না।

৩. পণ্যের লিংক কে কোন রিডাইরেক্ট সট লিঙ্ক করা যাবে না। কিছু কিছু ওয়েবসাইট রয়েছে যেখানে কোন লিংকে শট করার মাধ্যমে পে করা হয়। এই ধরনের ওয়েবসাইট ধারা অ্যামাজনের অ্যাফিলিয়েট লিংককে শট করা যাবেনা।

৪. অ্যামাজনের পেমেন্ট নিতে চাইলে অবশ্যই যেসব দেশে অ্যামাজন সাপোর্ট করে সেসব দেশের ব্যাংক একাউন্টের ঠিকানা করতে হবে। অ্যামাজনে আপনি অন্য কোন দেশের ব্যাংক ঠিকানা ব্যবহার করতে পারবেন না।

৫. কোন পণ্যের ভুল মার্কেটিং করা যাবে না।

৬. অ্যামাজনের অনুমোদন ছাড়া কোন পণ্যের ডিসকাউন্ট দিয়ে পণ্যের প্রচার করা যাবে না।

৭. অ্যামাজন সাপোর্ট করে না এমন কোন ওয়েবসাইট বা অ্যাপস এ পণ্যের প্রচার করা যাবে না।

আশা করি আজকের পোস্টটি আপনাদের ভালো লেগেছে। সবাই ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন। আল্লাহ হাফেজ।

আরো দেখে আসতে পারেনঃ

ফেসবুক পেজকে জনপ্রিয় করার কয়েকটি উপায়

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top