Redrum মুভি রিভিউ Redrum বাংলা রিভিউ

Redrum মুভি রিভিউ দেখে নেই একনজরে।Redrum বাংলা রিভিউ দেখে নেই অসাধারণ একটি মুভি রিভিউ।

🔰 Movie Name : Redrum
🔰Cast : Afran Nisho, Mehezabin
🔰Genre : Crime, Thriller

🔰Redrum মুভি প্লট : প্রথমেই দেখানো হয় একটা সুখী পরিবার ভালোভাবে দিন কাটাচ্ছে পরিবারে নতুন সদস্য আসতে চলেছে কিন্তু হঠাৎ করেই একদিন রাতে সেই পরিবারে খুন হয়ে যায় কিন্তু পাশে তার বউ শুয়ে থাকলেও সেই খুনের কোনো আওয়াজ সে পায়নি। যার খুন হয় সে একজন সেলিব্রিটি হওয়ায় ঘটনার চাঞ্চল্য চারিদিকে ছড়িয়ে যায়।

🔰 Redrum মুভি মতামত : নিশো তার ফ্যানদের হতাশ করে না, যারা ক্রাইম, থ্রিলার মুভি পছন্দ করেন তারা অবশ্যই দেখতে পারেন। এক সেলিব্রিটিকে হঠাৎ খুন করা হয়। যাদের সন্দেহের তালিকায় আপনি রাখবেন তাদের নিজস্ব motive থাকতে পারে তবে এখানে সন্দেহের তালিকাটি কম। এতদিনে যারা ক্রাইম থ্রিলার দেখে এসেছেন তারা আগেই বুঝতে পারেন যাকে প্রথমেই সাসপেক্ট হিসেবে হয় সে খুনি হয় না, এখানেও আপনি তাই ই ভাববেন। একটা হত্যার পিছনে কারণ থাকে। আসতে আসতে অতীতের কিছু ঘটনা দেখানো হবে। তার সাথে এই হত্যার কি সম্পর্ক তা মুভির শেষে বুঝতে পারবেন। আমি আপাতত ” হত্যা ” শব্দ টিই ব্যবহার করছি কারণ আপনারা এখনো মুভিটি দেখেননি। দেখে নিয়ে জানাবেন কেমন লাগলো।

REDRUM ক্যারেক্টার : নীলা

কেমন ছিল মেহজাবীনের প্রথম ওয়েব ফিল্ম পারফরমেন্স, সেটা নিয়ে বলি।

‘আই ফা* ইউর মৌমাছি পোর্টাল!’

মারাত্মক ক্ষেপে গিয়ে নীলা ক্যারেক্টারে মেহজাবীন বললেন এটা। নীলার স্বামী সংগীত শিল্পী সোহেল মারা যাবার পর সামাজিক পারস্পেক্টিভ থেকে নীলাকেই দোষারোপ শুরু করা হয়। মিডিয়া ট্রায়ালে, টিভি আর সোশ্যাল মিডিয়াতে নীলাকে একের পর এক আক্রমণ করা হয়। গর্ভবতী হলেও আক্রমণকারীরা সেটা ভুলে যায়। ব্যাঙের ছাতার মত গজিয়ে ওঠা পোর্টাল ‘মৌমাছি’ যেন হুল ফুটাতে পেছনে লেগে থাকে নীলার। শেষপর্যন্ত বাধ্য হয়ে গালি দিয়ে ওভাবে রাগ ঝাড়ে নীলা।

গালি দেয়া কখনোই কি ভাল কথা হতে পারে! সেটা বলে দেবে নীলার সেই পরিস্থিতিটা বুঝতে পারা দর্শক। তবে গালির জায়গায় মিষ্টিভাষ্য দেয়াও সব জায়গায় মেনে নেয়া যায় না। পরিস্থিতি যখন চরিত্রকে বাধ্য করে তখন সে গালি দিয়ে নিজের রাগ ঝাড়তে চায়। এমন কাজ হরহামেশা আমরাও অনেকে করি। শুধু স্ক্রিনে দেখলেই আমরা অনেকে মানতে পারি না। মেহজাবীন নীলা চরিত্রে বেশ মানানসই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন, কমও না আবার খুব ভালগারও না।

‘কে’ নামে আশফাক নিপুণের একটি শর্টফিল্ম এসেছিলো ভুলতে বসা প্ল্যাটফর্ম ‘আইফ্লিক্স’এ। ওয়েবে সেটিই মেহজাবীন এর প্রথম কাজ। আর ‘চরকি’র REDRUM মেহজাবীনের প্রথম ওয়েব ফিল্ম। নাটক, শর্টফিল্ম আর ওয়েবফিল্মের পর তার বাকি থাকলো শুধু বড়পর্দায় কাজ করাটা। তবে ব্লকবাস্টারে শো দেখানোতে লজিক্যালি মেহজাবীন এখন বড়পর্দাতেও আছেন। ‘নীলা’ ক্যারেক্টারের জন্য মেহজাবীনকে ফিজিক্যালি বা অন স্ক্রিন এপিয়ারেন্সের জন্য খুব চ্যালেঞ্জ নিতে হয়েছে সেটা আমি বলব না, চোখের ভ্রুর দিকে আড় করে কাটা ছাড়া। তবে এমন একটা মার্ডার মিস্ট্রিতে কয়েকটি শেডে পারফর্ম করতে মানসিকভাবে তাকে চ্যালেঞ্জ নিতে হয়েছে তা বোঝা যায়।

নিজের প্রথম ওয়েব সিরিজ নিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে মেহজাবীন বলেন, ‘আমি গল্প শুনেই মুগ্ধ হয়েছিলাম। তখনই মনে হয়েছিল, আমি রেডরাম-এর পার্ট হতে চাই। চরিত্রের জন্য যা করতে হয় করব। কেমন হয়েছে, সেটা আপনারা বলবেন। আমরা পুরো টিম দিন–রাত এক করে কাজ করেছি। ১২০ ভাগ দেওয়ার চেষ্টা করেছি।’

REDRUM এ মেহজাবীনের চরিত্রে ছাত্রজীবন ও সংসারজীবনে পুরোপুরি ভিন্ন দুটি রোলে দেখা গেছে। ছাত্রজীবনে নৃত্যে স্বচ্ছন্দ, চুটিয়ে প্রেম করা এক দারুণ নীলাকে আমরা দেখি। আর সংসারজীবনে প্রথমে সুখী হলেও পরবর্তীতে একটা অনাকাঙ্ক্ষিত সত্য সামনে আসায় অসুখী, ডিপ্রেসড ও প্রতিশোধপরায়ণ এক নারীর শেডে তাকে দেখা যায়। আফরান নিশোর সাথে মেহজাবীনের এখানে ফেস অফ বেশ ভাল ইমপ্যাক্ট আনলেও তারা জুটি হিসাবে কাজ করেন নি। গল্পে বলা যায় নীলা ক্যারেক্টারটিকে মেহজাবীন বেশ ভালভাবে ধারণ করে জীবন্ত করে তুলেছেন। দর্শক একসময় তাকে সন্দেহ করে, পছন্দ করবে আবার অন্যসময় তাকে ঘৃণাও করবে, মায়াও হবে তার জন্য।

সবমিলিয়ে ওয়েবে একটা কমফোর্ট জোনে থেকেও নিজের সর্বোচ্চটা দিয়েছেন মেহজাবীন যার সাক্ষী তার পারফরমেন্স। তার ভক্ত ও ওয়েব কনটেন্টপ্রেমী দর্শক মাত্রই তাকে ভিন্ন রূপে আরো কাজ দেখতে চাইবে রেডরাম এর পর।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top