Online Earning Tips

ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে আয় করুন হাজার হাজার টাকা – অনলাইনে ইনকাম করার সঠিক গাইডলাইন

অনলাইনে ইনকাম করার সঠিক গাইডলাইন; ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে আয় করুন হাজার হাজার টাকা। আপনাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা ভাবেন আসলে কি মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করা যায় কিংবা মোবাইল দিয়ে টাকা কিভাবে আয় করে। আপনাদের জন্য আজকের আর্টিকেলটি সুন্দরভাবে সাজানো হয়েছে আপনাদের সাথে উপস্থাপন করব কিভাবে ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে আয় করবেন হাজার হাজার টাকা এবং অনলাইনে ইনকাম করার সঠিক গাইডলাইন।

ঘরে বসে মোবাইলে আয় করার উপায় ২০২২। অনলাইন ইনকাম করতে হলে অনেকে ভাবে যে ল্যাপটপ বা কম্পিউটার ছাড়া অনলাইন থেকে আয় করা সম্ভব না কিন্তু আমরা আপনাদের সাথে শেয়ার করব ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে কিভাবে টাকা ইনকাম করার উপায় । তাই আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ে তাহলে আপনি বুঝতে পারবেন কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করবেন। বেশি কথা না বলে চলুন শুরু করি।

আমরা এই আরটিকেল থেকে যা যা জানবো

ঘরে বসে মোবাইলে আয় ২০২২

একটি মোবাইল ফোন থাকলে আর ইন্টারনেট সংযোগ থাকলে আপনার ২০২২ সালে এসে ঘরে বসে মোবাইলে আয় করতে পারবেন খুব সহজে। ঘরে বসে মোবাইলে আয় ২০২২ আজকে আমরা একটি অনলাইনে ইনকাম করার গাইডলাইন নিয়ে আলোচনা করতে যাচ্ছি। সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি ধৈর্য সহকারে পড়ুন, আশাকরি ঘরে বসে মোবাইলে আয় করার একটি ধারণা পেয়ে যাবেন।

মোবাইল দিয়ে টাকা আয় কিভাবে করবেন?

বর্তমান ফাইভ-জি ইন্টারনেটের যুগে সবারই কম-বেশি একটা মোবাইল ফোন থাকে। অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ২০২২। আর আপনি চাইলে এই ইন্টারনেট এবং আপনার হাতে থাকে স্মার্টফোন দিয়ে অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন তাও খুবই ভালো পরিমাণ একটা ইনকাম। মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে হলে আপনাকে ইন্টারনেট সংযোগ সেইসাথে আপনার স্মার্টফোনটি থাকা লাগবে এবং কয়েকটি নিয়ম কারণ মেনে চললে আপনি মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করতে পারবেন।

মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে যা প্রয়োজন?

মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে হলে আপনাকে প্রথমেই একটি স্মার্টফোন সেই সাথে একটু ভালো স্পিডের ইন্টারনেট সংযোগ লাগবে। আপনার কাছে যদি ইন্টারনেট সংযোগ এবং একটি স্মার্টফোন থাকে তাহলে আপনি মোবাইল দিয়ে আয় করতে পারবেন। তারপর আপনাকে নির্দিষ্ট কয়েকটি পন্থা অবলম্বন করতে হবে যেগুলো আপনার ভাল লাগে বা আপনি কয়েকটি পন্থা অবলম্বন করতে হবে।

যেগুলো আপনার ভাল লাগে বা আপনি করতে ইন্টারেস্টেড। নিম্নে মোবাইল দিয়ে আয় করা যায় এমন কয়েকটি পন্থা বা টপিকস আলোচনা করা হলো এরমধ্যে আপনার যে পন্থাটি ভালো লাগবে সে পন্থা অবলম্বন করে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে পারবেন অনলাইন থেকে।

ফ্রি টাকা ইনকাম

ফ্রি টাকা ইনকাম করা যায় মোবাইল দিয়ে কিন্তু আপনাকে যেকোন একটি স্কিল ডেভেলপ করে কাজ করলে এতে আপনার অনলাইনে ইনকাম করতে সুবিধা হয় অনেক বেশি। প্লে স্টোরে ফ্রি টাকা ইনকাম apps পেয়ে যাবেন। সেখান থেকে আপনি চাইলে ফ্রি টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

তবে এই অ্যাপসগুলো থেকে যে পরিমাণ টাকা আয় হবে তা থেকে বেশি ইন্টারনেট খরচ হবে। ফ্রী ইনকামের অ্যাপস গুলো থেকে আয় খুবই সামান্য হয় তাই আপনাদের সাজেস্ট থাকবে কোন একটি স্কিল ডেভেলপ করে তারপর কাজ করুন তাহলে ভালো কিছু করতে পারবেন অনলাইন জগতে।

আরো পড়ুনঃ ২০২২ সালে অনলাইন ইনকাম করার ৫ টি সহজ উপায়: অনলাইনে ইনকাম করার উপায় ২০২২

গেম খেলে আয় করুন

গেম খেলে আয় করুন খুব সহজে। বর্তমানে এই গেম খেলে আয় করার মাধ্যমে অনেকে লাখ লাখ টাকা আয় করতেছে। আপনিও পারেন গেম খেলে লাখ লাখ টাকা আয় করতে। গেম খেলে টাকা ইনকাম করার অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে ইউটিউব ফেসবুকে লাইভ স্ট্রিম করা কিংবা বিভিন্ন ওয়েবসাইটে যেয়ে গেম খেলা।

গেম খেলে ইনকাম করা অনেকগুলো ওয়েব সাইট আছে যেখান থেকে আপনি চাইলেই গেম খেলে টাকা আয় করতে পারবেন। তাছাড়া ফেসবুক এবং ইউটিউব লাইভ স্ট্রিম আপনার খেলা দক্ষতা দেখিয়ে অনেক টাকা আয় করতে পারেন।

মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট app

অনেকে অনলাইনে অনেক কাজ করিয়ে নেয় যার ফলশ্রুতি বিকাশে পেমেন্ট করে থাকে। আপনি যদি কোন কাজে দক্ষ হয়ে থাকেন তাহলে আপনি মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করে বিকাশে পেমেন্ট নিতে পারেন। বর্তমানে অনেকেই অফিসসহ বিভিন্ন দরকারি কাজ অনলাইনে মানুষ দারা করিয়ে নেন, যেমন আমি নিজেও অনেক কাজ করে নেই। সেই সাথে তাদের পেমেন্ট গুলো বিকাশে করা হয়ে থাকে আপনি তা করতে পারেন।

টাকা ইনকাম করার উপায় মোবাইল অ্যাপস দিয়ে

মোবাইল দিয়ে টাকা আয় কিভাবে করবেন?, মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে যা প্রয়োজন?, ব্লগিং (Blogging) করে টাকা আয়, ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয়, মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট app, কোন সফটওয়্যার দিয়ে টাকা ইনকাম করা যায়, ফ্রি টাকা ইনকাম, টাকা ইনকাম করার উপায় মোবাইল অ্যাপস দিয়ে, টাকা ইনকাম করার অ্যাপ বাংলাদেশ, ক্যাপচা টাইপিং করে আয় করুন, মোবাইল দিয়ে ফ্রিল্যান্সিং করে, মোবাইল দিয়ে আউটসোর্সিং, ফটোগ্রাফ বা ভিডিও বিক্রি করে, অনলাইন টিউশন করে, ফেসবুক ই-কমার্স দ্বারা, রিসেলিং ব্যবসা করে,, ইন্সটাগ্রাম থেকে, মাইক্রোওয়ার্ক সাইট থেকে, আর্টিকেল লিখে টাকা আয়, Fiverr ওয়েবসাইটে কাজ করে আয়, Upwork ওয়েবসাইটে কাজ করে আয়, Freelancer ওয়েবসাইটে কাজ করে আয়, Dealancer ওয়েবসাইটে কাজ করে আয়, ঘরে বসে মোবাইলে আয় করার উপায় ২০২২, প্রতি মাসে মোবাইল থেকে আয় করার লিস্ট, ঘরে বসে মোবাইল থেকে টাকা আয় করার উপায়, YouTube থেকে টাকা আয় করুন, ইনস্টাগ্রাম দিয়ে টাকা আয় করুন, ব্লগিং করে ঘরে বসে মোবাইলে আয়, গেম খেলে আয় করুন, সার্ভে করে ঘরে বসে আয় করুন, রেফার করে ঘরে বসে মোবাইলে আয়, ছবি বিক্রি করে মোবাইল থেকে টাকা আয় করুন, Google Maps থেকে ঘরে বসে মোবাইলে আয়, মিমস (Memes) তৈরি করে মোবাইল থেকে টাকা আয় করুন, ঘরে বসে মোবাইলে আয় সম্পর্কে কিছু কথা, অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ২০২১, অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ২০২২, স্টুডেন্ট অনলাইন ইনকাম, সরকারি অনলাইন ইনকাম, অনলাইন ইনকাম বিকাশ পেমেন্ট, অনলাইন ইনকাম সাইট, অনলাইন ইনকাম 2022, ভিডিও দেখে অনলাইন ইনকাম, অনলাইন ইনকাম সাইট বাংলাদেশ,

মোবাইল অ্যাপস দিয়ে টাকা আয় করা যায়। অনেক বিদেশী অ্যাপস আছে যেগুলো মাধ্যমে আপনি মোবাইল দিয়ে ইনকাম করতে পারবেন। আপনি প্লে স্টোরে অনেক অ্যাপস পেয়ে যাবেন যে এপস গুলোর মাধ্যমে আপনি খুবই ভালো পরিমাণে একটি টাকা আয় করতে পারবেন। প্লে স্টোর বা অ্যাপেল স্টোর অনেক অ্যাপস পাবেন যেগুলো থেকে টাকা ইনকাম করা যায় এমন অনেক নানা বিজ্ঞাপন দেখে থাকবেন কিন্তু এগুলো সবগুলো বিশ্বাসযোগ্য না।

তাই আপনাদের সাথে কিছু বিশ্বাসযোগ্য অ্যাপস শেয়ার করতেছি যেগুলোর মাধ্যমে আপনি অনলাইনে ইনকাম করতে পারবেন। অনলাইন থেকে ইনকাম করার বিশ্বাসযোগ্য অ্যাপস গুলোর নাম হলঃ পকেট মানি, পোল পে, গুগল অপিনিওন রিওয়ার্ড, গুগল kormo অ্যাপস ।

টাকা ইনকাম করার অ্যাপ বাংলাদেশ

আপনি ফেসবুক কিংবা ইউটিউবে অনেক বিজ্ঞাপনে দেখে থাকবেন বাংলাদেশ অ্যাপস থেকে আয় করা যায়। কিন্তু সেগুলো কিছু সময়ের জন্য তার পর আর করা যায় না। বাংলাদেশে এমন কোন মোবাইল অ্যাপস নেই। তাছাড়া এগুলো থেকে এত বেশি ইনকাম হয় যে আপনি যে ইন্টারনেট খরচ টা খুলতে পারবেন না। তাই এইসব অ্যাপস এর পিছনে হুদাই দৌড়াদৌড়ি না করার সাজেশন থাকবে

সার্ভে করে ঘরে বসে আয় করুন

সার্ভে করে ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করুন খুব সহজে। পারবে বর্তমানে জনপ্রিয় একটি মাধ্যম অনলাইন ইনকাম করার। কয়েকদিন আগে আমার এক বন্ধু সার্ভে করে অনলাইন থেকে ইনকাম করেছে প্রায় ৭০ হাজার টাকা তাও মাত্র পাঁচ দিনে। এ থেকে আশা করি কিছুটা ধারণা পেয়েছেন সার্ভে করে কি রকম আয় করা যায়।

সার্ভে করে ইনকাম করতে হলে আপনাকে অবশ্যই ভালো ইংরেজি জানতে হবে। তবে আপনি যদি মোটামুটি ইংরেজি বোঝেন তা হল সার্ভেতে কাজ চালিয়ে যেতে পারবেন এতে কোন প্রকার সমস্যা করতে হবে না। সার্ভে কি? সার্ভে হচ্ছে কোন একটি কিছুর জরিপ। আপনি যদি এটা সামান্য ভাল ইংরেজি বোঝেন তাহলে সার্ভে করে আপনিও মাসে ৫০ হাজার থেকে ১ লক্ষ টাকা আয় করতে পারবেন খুব সহজে।

আরো পড়ুনঃ সার্ভে কি? সার্ভে করে অনলাইনে ইনকাম করুন জানুন খুটিনাটি সবকিছু।

কোন সফটওয়্যার দিয়ে টাকা ইনকাম করা যায়

বর্তমান বাজারে অনেকগুলো সফটওয়্যার আছে যেগুলো মাধ্যমে অনেক মানুষই অনলাইন থেকে ইনকাম করছে। তবে এই সফটওয়্যার গুলো আমাদের বাংলাদেশের বাজারে অ্যাভেলেবেল নেই তাই আপনারা চাইলেও এই সফটওয়্যার গুলো থেকে টাকা আয় করা সম্ভব নয়। তবে আপনি যদি নির্দিষ্ট কোন সফটওয়ারের কাজ করে থাকেন তাহলে টাকা আয় করতে পারবেন অবশ্যই।

ব্লগিং (Blogging) করে টাকা আয়

আপনার যদি একটি ভাল মানের ক্যামেরা ফোন থাকে তাহলে আপনি ব্লগিং করে ও ইনকাম করতে পারেন। তার জন্য অবশ্যই আপনাকে একটি ইউটিউব চ্যানেল বা ফেসবুক পেজ থাকা লাগবে। ধরুন আপনি কোথাও ঘুরতে গেলেন বা আপনি যদি ভ্রমন প্রিয় মানুষ থাকেন তাহলে এই প্লাটফর্ম টা পড়ার জন্য। কোথায় ঘুরতে যে আপনি একটা ভিডিও করলেন এবং সেই জায়গা সম্বন্ধে বিস্তারিত আপনার ভিডিওতে উপস্থাপন করলেন।

আর এই কাজটি মোবাইল দিয়ে করা যায়। তাহলে আপনি খুবই ভালো পরিমাণ টাকা আয় করতে পারবেন ব্লগিং করে। এ প্লাটফর্মে অ্যাফিলিয়েট কিংবা স্পনসর করে আয় করতে পারবেন তাছাড়াও মনিটাইজেশন তো আছেই।

বাংলা ব্লগ করে টাকা আয়

বাংলা ব্লগ করে টাকা আয় করতে পারেন খুব সহজে আমাদের ওয়েবসাইটটি ও বাংলা ব্লগ করেই অনলাইন ইনকাম করতেছে। আপনি যদি লিখতে ভালোবাসেন তাহলে আপনি এই লাইনে আসতে পারেন। এজন্য প্রথমে আপনাকে ওয়ার্ডপ্রেস বা ব্লগার এ আপনার ডোমেইন এবং হোস্টিং কেনার পর একটি সাইট খুলতে হবে । নির্দিষ্ট একটি নিশ সিলেক্ট করে সেখানে প্রতিনিয়ত আপনার কনটেন্ট দিয়ে যেতে হবে।

পরিবর্তীতে গুগোল মনিটাইজেশন নিয়ে আপনার বাংলা ব্লগ থেকে আয় করতে পারবেন।তাছাড়া এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করতে পারবেন।

ইংলিশ ব্লগ করে অনলাইনে ইনকাম

আপনি যদি ইংরেজি ভালো বোঝে না সেই সাথে কোন বিষয়ে দক্ষ তাহলে আপনি ইংলিশ ব্লগ সাইট তৈরি করে খুবই ভালো পরিমাণ অনলাইন থেকে আয় করতে পারবেন। এজন্য প্রথমে আপনাকে ওয়ার্ডপ্রেস বা ব্লগার এ আপনার ডোমেইন এবং হোস্টিং কেনার পর একটি সাইট খুলতে হবে । নির্দিষ্ট একটি নিশ সিলেক্ট করে সেখানে প্রতিনিয়ত আপনার কনটেন্ট দিয়ে যেতে হবে।

পরিবর্তীতে গুগোল মনিটাইজেশন নিয়ে আপনার ইংরেজি ব্লগ থেকে আয় করতে পারবেন। তাছাড়া এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করতে পারবেন।

ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয়

ইউটিউব থেকে আয় এটা তো আমরা সবাই জানি ইউটিউব থেকে এড এর মাধ্যমে অনেক আয় হয়ে থাকে। তার জন্য প্রথমে আপনাকে একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে হবে আপনার মোবাইল দিয়ে। তারপর সেখানে নিয়মিত ভিডিও তৈরি করে ভিডিও আপলোড করতে হবে। তারপর ইউটিউব মনিটাইজেশন এর জন্য আপনাকে আবেদন করতে হবে।

তবে ইউটিউব মনিটাইজেশন এর জন্য আপনাকে আপনার চ্যানেলে 1000 সাবস্ক্রাইবার এবং 4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম নিয়ে আসতে হবে তাহলেই আপনি ইউটিউব মনিটাইজেশন এর মাধ্যমে আয় করতে পারবেন তাছাড়া আপনি বিভিন্ন স্পন্সর করে আয় করতে পারেন।

ক্যাপচা টাইপিং করে আয় করুন

অনেক ওয়েবসাইট আছে শুধুমাত্র ক্যাপচা টাইপ করে আয় করার সুযোগ দিয়ে থাকে। আপনি ফ্রি সময় এই ওয়েবসাইটগুলোতে ভিজিট করে ক্যাপচা পুরন করে আয় করতে পারেন। মোবাইল দিয়ে ক্যাপচা টাইপিং করে মাসে ৪ থেকে ৬ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হল কোন একটি নির্দিষ্ট পরলোকে প্রমোট করা এবং সেই পণ্য বিক্রয়ের মাধ্যমে কিছু কমিশন নিয়ে গ্রহণ করা। আপনি ফেসবুক ইউটিউব বা ইমেইলে বা কোন ওয়েবসাইটে একটি পরলোকে প্রমোট করবেন। সেইসাথে আপনার দেওয়া লিঙ্ক থেকে যদি কেউ পণ্য ক্রয় করে, তাহলে সেখান থেকে আপনি কিছু কমিশন পাবেন। এ এভাবে আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে পারেন।

ইউটিউব থাম্বনেইল তৈরি করে

মোবাইল দিয়ে ইউটিউব থাম্বনেইল তৈরি করে অনলাইনে ইনকাম করতে পারেন। আপনি যদি একটু ভালো ফটো এডিট করতে পারেন তাহলে এই কাজটা আপনার জন্য। আর ইউটিউব থাম্বনেইল এক জায়গা অনেক বেশি কিন্তু এই সেক্টরে কাজ কর আমার খুবই কম। আপনি যদি ফটো এডিট ভালো পারেন তাহলে অবশ্যই এই কাজটি শুরু করতে পারেন আপনার জন্য খুবই ভালো হবে এবং সেইসাথে ভালো অনলাইন থেকে আয় করতে পারবেন।

মোবাইল দিয়ে ফ্রিল্যান্সিং করে

মোবাইল দিয়ে ফ্রিল্যান্সিং করে আয় করে অনেকগুলো ধাপ বা পদ্ধতি রয়েছে। আমরা সবাই জানি ফ্রিল্যান্সিং হচ্ছে একটা মুক্তপেশা এখানে কোনো ধরাবাধা কিছু থাকে না আপনার যখন ইচ্ছা তখনই কাজ করতে পারেন। আপনি আপনার হাতে থাকে এ স্মার্টফোনটি তারা ফ্রিল্যান্সিং করতে পারেন তবে সব কাজ করা যায় না মোবাইল দিয়ে। আপনার মোবাইলে ফ্রিল্যান্সিং করতে পারেন যেমনঃ কনটেন্ট লিখতে পারেন কনটেন্ট রাইটিং, ভিডিও তৈরি করা, ক্যাপচা পুরন করা কিংবা গেম খেলেও ফ্রিল্যান্সিং করতে পরেন।

মোবাইল দিয়ে আউটসোর্সিং

মোবাইল দিয়ে ফ্রিল্যান্সিং কিংবা মোবাইলে আউটসোর্সিং একই কথা একই সূত্রে গাঁথা। মোবাইল দিয়ে আউটসোসিং হলো বিদেশে বায়াত থেকে কাজ খুঁজে নেওয়া সেইসাথে সময় মত কাজগুলো ডেলিভারি দেওয়া। আর কাজগুলো হলো ফ্রিল্যান্সিংয়ে যে কনটেন্ট রাইটিং ভিডিও তৈরি করা কিংবা ক্যাপচা পুরন এবং গেম খেলা এইগুলোই।

ফটোগ্রাফ বা ভিডিও বিক্রি করে

আপনি যদি ভালো ছবি তুলতে পারেন বা ভিডিও এডিট করতে পারেন। তাহলে এই কাজটা আপনার জন্য বর্তমানে এর চাহিদা অনেক বেশি। আপনার হাতে যে ফোনটা আছে এর মাধ্যমে আপনি সুন্দর ছবি কিংবা ভিডিও করলেন এবং সেটি চাইলে আপনি অনলাইনে বিক্রি করে আয় করতে পারেন। অনলাইনে ছবি ও ভিডিও বিক্রি করার জন্য অনেকগুলো ওয়েবসাইট আছে সেই ওয়েবসাইট গুলোতে আপনাকে রেজিস্ট্রেশন করে তারপর ওখানে বিক্রি করতে পারবেন যদি আপনার ছবিগুলো বা ভিডিওগুলো সুন্দর এবং মানুষের পছন্দ বা গ্রহণযোগ্যতা পায়।

অনলাইন টিউশন করে

অনেক আগে থেকে অনলাইনে টিউশন করে আয় করার সিস্টেম থাকলেও এটি এতটা জনপ্রিয় ছিল না। কিন্তু করোনা মহামারীর সময় অনলাইন টিউশন এর চাহিদা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। আপনি যদি কোন বিষয় খুবই ভালো বোঝেন এবং স্টুডেন্ট দের কে পড়াতে পারবেন। তাহলে আপনি অনলাইন টিউশনি করতে পারেন।

তাছাড়া আপনি অনলাইনে টিউশন মুলক ভিডিও করে ছাড়তে পারেন এবং টিউশন এর উপর কোর্স করে সেটিও বিক্রি করতে পারবেন এই অনলাইন প্লাটফর্ম কে ব্যবহার করে আপনার মোবাইল ফোন দিয়ে। অনলাইন টিউশন এর জন্য অনেকগুলো ওয়েবসাইট আছে সেখান থেকে আপনি টিউশন করতে পারেন তাছাড়া আপনার পরিচিত যদি কেউ থেকে থাকে তাদেরকে অনলাইনে মাধ্যমে পরিয়ে আয় করতে পারেন আর এই কাজটি সম্পন্ন মোবাইল দিয়ে করতে পারবেন।

ফেসবুক ই-কমার্স দ্বারা

ফেসবুক ই-কমার্স দ্বারা ইনকাম করতে হলে আপনাকে ফেসবুকের কিছু নিয়ম কারণ মানতে হবে। আপনাকে কিছু টাকা ইনভেস্ট করতে হবে। প্রথমে আপনাকে একটি ফেসবুক পেজ খুলতে হবে। তারপর আপনি যে পন্য গুলো বিক্রি করবেন সে পণ্যগুলোর ভালোভাবে রিভিউ করুন প্রয়োজনে ভিডিও তৈরি করুন। তারপর ফেসবুক মার্কেটিং বা বুস্ট মেরে আপনি আপনার পণ্যগুলো বিক্রি করতে পারেন।

রিসেলিং ব্যবসা করে

কোন প্রোডাক্ট ক্রয় করেছেন এবং তা পুনরায় বিক্রি করবেন এটাকে বলে রিসেলিং ব্যবসা ।রিসেলিং ব্যবসা হচ্ছে মধ্যস্থ ব্যবসা। এখানে আপনার কোন ইনভেস্টমেন্ট এর প্রয়োজন পড়ে না শুধুমাত্র ক্রেতা এবং বিক্রেতা মাঝে আপনি একজন উপস্থাপক হয় পণ্যগুলো বিক্রি করবেন। যা আপনি খুব সহজেই করতে পারবেন আপনার মোবাইল ফোন দিয়ে ।

ইন্সটাগ্রাম থেকে টাকা আয়

ইন্সট্রাগ্রাম হচ্ছে ছবি বা পিকচার শেয়ারের একটি প্ল্যাটফর্ম। আর আপনি চাইলে এই পিকচার বা ভিডিও শেয়ারের মাধ্যমে ইনস্টাগ্রাম থেকে ইনকাম করতে পারেন। আপনার কাছে যদি ইনস্টাগ্রামে ভালো অডিয়েন্স থাকে। সেখানে কোন প্রোডাক্ট বা স্পন্সর এর মাধ্যমে ইনস্ট্রাগ্রাম থেকে অনলাইনে আয় করতে পারবেন।

তাছাড়া আপনি যদি নতুনভাবে ইনস্টাগ্রাম একাউন্ট খুলে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে চান। তাহলেও পারবেন তবে তার জন্য একটু আপনাকে কষ্ট করতে হবে। নিয়মিত পোস্ট আপডেট করতে হবে এবং অডিয়েন্স গেইন করতে হবে। তার জন্য প্রথমেই আপনাকে সুন্দর একটি নাম ছবি এবং যাবতীয় তথ্য দিয়ে প্রোফাইল খুলতে হবে । এবং নির্দিষ্ট একটি ব্যবসা কে টার্গেট করে আপনার প্রমোশন চালিয়ে যেতে হবে আপনি যে ধরনের ব্যবসা করতে চান উক্ত ধরনের অন্যান্য ইনস্টাগ্রাম আইডি কেউ ফলো করতে পারেন। এতে আপনার একটা ধারণা পেয়ে যাবেন।

আরো পড়ুনঃ ইনস্টাগ্রাম থেকে টাকা উপার্জন? ইনস্টাগ্রাম থেকে টাকা উপার্জন করার উপায়?

মাইক্রোওয়ার্ক সাইট থেকে

অনেক মাইক্রোওয়ার্ক-এর সাইট রয়েছে যেখানে, তারা তাদের কাজের জন্য অনলাইনে অফার করে থাকে বা কর্মী নিয়োগ করে । এখানে আপনি ফেসবুকে ফলো করা ফেসবুকে লাইক করা ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করা এরকম কাজ পেয়ে যাবেন। আপনি চাইলে এ কাজে সুযোগটি আপনিও লুফে নিতে পারেন যাতে করে আপনার মোবাইল দিয়ে সব সাইট থেকে কাজ করে আয় করতে পারেন ।মাইক্রোওয়ার্ক এর অনেক অনেক সাইট আছে।

আর্টিকেল লিখে টাকা আয়

আর্টিকেল লিখে টাকা আয় করুন খুব সহজে। বর্তমানে এ প্লাটফর্ম দিয়ে মোবাইলে আয় করার সবচেয়ে জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম। আমার ওয়েবসাইট ও কয়েকজন দেখবেন যে আর্টিকেল লিখে আয় করতেছে আমি পর্যাপ্ত পরিমাণ টাকা দিয়ে থাকি একটা আর্টিকেল এর জন্য। আপনি চাইলে বিভিন্ন বাংলা ব্লগ ওয়েবসাইটেও আর্টিকেল লিখে আয় করতে পারেন তাছাড়া আপনার ভারতীয় স্কেল থাকে তাহলে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে আর্টিকেল রাইটিং এর কাজ করতে পারেন।

Fiverr ওয়েবসাইটে কাজ করে আয়

ফাইবার একটি অনলাইন ভিত্তিক কাজ করার ওয়েবসাইট। এখানে আপনি কোন বিষয়ে যদি দক্ষ হয়ে থাকেন তাহলে ফাইবার একাউন্ট খুলে কাজ করতে পারেন। ফাইবার ওয়েবসাইটটিতে আপনি আপনার কাজের দক্ষতা উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন প্রকার গিগ তৈরি করবেন এবং প্রাইস নির্ধারণ করে। প্রাইসের সাথে আপনার কাজের বা সার্ভিসটির যদি কোন বায়ার পছন্দ হয় তাহলে সে আপনাকে দিয়ে কাজটি করিয়ে নিবে।

মনে করুন, আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং মার্কেটিং এক্সপার্ট । আপনি একজন ডিজিটাল মার্কেটার। এখন আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং এর উপর আপনার প্রোফাইল খুলবেন । এবং যারা ডিজিটাল মার্কেটিং এর উপর কাজ করে নিতে চাই এমন কিছু গিগ তৈরি করবেন । সে সকল বায়ারদের থেকে বিড করে কাজ নিবেন।

Upwork ওয়েবসাইটে কাজ করে আয়

আপওয়ার্ক হলো ফাইবারের মতোই একটি ওয়েবসাইট। ফাইবারে আপনার কাছে বাইয়ার আসবে কিন্তু আপওয়ার্ক হল আপনি বাইরে থেকে কাজ করে কাজ নিতে হবে। এর পর সময় মতো কাজ ডেলিভারি দিতে হবে। ডিজিটাল মার্কেটিং, আর্টিকেল রাইটিং এবং ভিডিও ইডিট এই সমস্ত নরমাল কাজগুলো ফাইবার ফ্রিল্যান্সারের করতে পারবেন মোবাইল দিয়ে।

Freelancer ওয়েবসাইটে কাজ করে আয়

ফ্রিলান্সার ওয়েবসাইটটি হল আপওয়ার্ক ফাইবারের মতোই ওয়েবসাইট বা মারকেট প্লেস।আপওয়ার্ক ফাইবারের এ যে কাজ গুলো মোবাইল দিয়ে করতে পারবেন সেইম কাজ গুলো ও Freelancer এ কাজ করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করতে করতে পারবেন।

Dealancer ওয়েবসাইটে কাজ করে আয়

ফ্রিল্যান্সার ফাইবার আপওয়ার্ক এটি মার্কেটপ্লেস হলো বিদেশি মার্কেটপ্লেস। কিন্তু Dealancer ওয়েবসাইট বা মার্কেটপ্লেসটি হল বাংলাদেশি মারকেট প্লেস। বাংলাদেশে অনেক ভাই আছেন যারা অনেক সার্ভিস প্রদান করে থাকেন। সর্বোচ্চ নিরাপত্তার জন্য রাসেল ভাই এই ওয়েবসাইটটি মার্কেটপ্লেস টি তৈরি করেছেন।

এই ওয়েবসাইটে মূলত এডমিন ডিল ওয়েবসাইট নামে পরিচিত। যারা বিভিন্ন প্রোডাক্ট কেনা বেচা করে থাকে তারা এডমিন ডিল করতে চায় কিন্তু অনেক সময় এডমিনরাও প্রোডাক্ট বা টাকা মেরে দেয়। সে কথা চিন্তা করে আমাদের প্রিয় রাসেল ভাই Dealancer ওয়েবসাইটটি আমাদের জন্য নিয়ে এসেছে। এটিও বাকিসব মার্কেটপ্লেসের মতই তবে এখানে বিকাশ নগদ এবং বাংলাদেশের সকল ব্যাংক সাপোর্ট করে যা অন্য কোন মার্কেটপ্লেস তা সাপোর্ট করে না এটি আমাদের জন্যে সবচেয়ে বেশি সুখবর।

আমাদের শেষ কথা

আমরা এখানে আপনাদের সাথে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করার অনেকগুলো উপায় নিয়ে আলোচনা করেছি আশা করি আপনারা সেখান থেকে নির্দিষ্ট নিস বা টপিকস সিলেট করে ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে হাজার হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। আশা করি আমাদের অনলাইনে ইনকাম করার সম্পূর্ণ গাইডলাইনটি আপনাদের ভাল লেগেছে।

Shakil Ahamed

চেষ্টা করলে সফল অবশ্যই হওয়া যায়। চেষ্টা নতুন কিছু করার।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button