কিওয়ার্ড কি? কিওয়ার্ড রিসার্চ কেন এত গুরুত্বপূর্ণ

একটি মানসম্মত আর্টিকেল লেখার পূর্বে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ধাপ বা কাজ হলো কি-ওয়ার্ডস রিসার্চ (Keywords Research)করা৷

আপনাকে বুঝতে হবে কোন কি-ওয়ার্ডস (Keywords) গুলো গুগলে সার্চ হচ্ছে আর কোন কি-ওয়ার্ডস (Keywords ) গুলো আপনার আর্টিকেল Rank করানোর জন্য ব্যবহার করা উচিত হবে৷

আপনি যদি জানতে চান, কি-ওয়ার্ডস রিসার্চ কেন গুরুত্বপূর্ণ এসইও (Seo) জন্য? Why keywords research is so important for Seo? এবং কিভাবে সঠিকভাবে কি-ওয়ার্ডস রিসার্চ করে সার্চ Ranking এ আসবেন ও অন পেজ অপটিমাইজেশন করবেন, তবে আজকের আর্টিকলটি আপনার জন্যই৷

কি-ওয়ার্ডস (Keywords ) কী?

কি-ওয়ার্ডস একগুচ্ছ শব্দ ছাড়া আর কিছুই নয়,যেগুলো গুগলে নিয়মিত সার্চ করা হয়৷

আপনি যদি আপনার আর্টিকেল বা কনটেন্টে সঠিক ভাবে এই কি-ওয়ার্ডস গুলো ব্যবহার করতে পারেন তবে খুব সহজে আপনার আর্টিকেলের জন্য উপযুক্ত ভিজিটর গুগল সার্চ ইঞ্জিন থেকে পাবেন৷

কি-ওয়ার্ডস অন পেজ এসইও – On Page Seo এর জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে থাকে যা একেবারে অনস্বীকার্য৷
যদি সঠিক কি-ওয়ার্ডস নিয়ে আর্টিকেল লিখতে পারেন,তবে সার্চ ইঞ্জিন থেকে অনেক ট্রাফিক বা ভিজিটর বা পাঠক পাবেন৷

কি-ওয়ার্ডস রিসার্চ এসসিও এর জন্য এত গুরুত্বপূর্ণ কেন?

একেবারে প্রথম পর্যায়ে, আপনাকে কোন ব্লগ আর্টিকেল লেখার পূর্বে অবশ্যই সঠিকভাবে কি-ওয়ার্ডস রিসার্চ করে নিতে হবে এবং সাথে আপনার কনটেন্টও অপ্টিমাইজড করতে হবে৷ ভিজিটরা এটি খোঁজার মাধ্যমে আপনার সাইট ও পাঠকদের মধ্যে পথ তৈরি হবে এবং আপনাকে খুব গুরুত্বপূর্ণ ও মূল্যবান তথ্য-উপাত্ত তুলে ধরে পাঠকদের চাওয়া পূরণ করতে হবে৷

আরো পড়ুনঃ   ব্লগ বা ওয়েবসাইটের লোডিং স্পীড বাড়ানোর ১০টি অসাধারন উপায়

একজন ব্লগার হিসেবে, আপনার অবশ্যই লক্ষ্য হবে গুগলে সবার শীর্ষে Rank করা এবং এটি থেকে ভিজিটর নেওয়া৷ আর এই কি-ওয়ার্ডস ই আপনাকে চাহিদামত ট্রাফিক পেতে প্রভাবিত করবে৷

ব্যক্তিভেদে কি-ওয়ার্ডস (Keywords) ভিন্ন হয়ে থাকে৷

আপনি যদি প্রত্যাশিত পাঠক পেতে চান, তবে উচিত হবে Long Tail keywords ব্যবহার করে এগিয়ে যাওয়া যেটি আপনার জন্য খুব ভালো হবে৷

বিপরীতে, আপনার উদ্দেশ্য যদি হয় অনেক বেশি ট্রাফিক নেওয়া আপনার সাইটে, তবে আপনি Short Tail keywords ব্যবহার করে এগিয়ে যেতে পারবেন৷

তবে উল্লেখ্য, Short Tail keywords এর প্রতিযোগিতা বেশি হয়, ফলে গুগলে Rank করা নতুন ব্লগারদের জন্য খুবই কষ্টকর হয়ে দাড়ায়!

আরও পড়ুন : পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পাওয়ার উপায়

কি-ওয়ার্ডস (Keywords ) এর প্রকারভেদ

কি-ওয়ার্ডস (মূলত দুই প্রকারের হয়ে থাকে৷ যথা:-

১.শর্ট টেইল কি-ওয়ার্ডস (Short Tail Keywords)

শর্ট টেইল কি-ওয়ার্ডস (Short Tail Keywords) এটি মূলত ২ থেকে ৩ শব্দের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে৷ উদাহরণস্বরূপ : ‘অনলাইন থেকে আয়’ এই কি-ওয়ার্ডস নিয়ে গুগলে Rank করা কষ্টসাধ্য ব্যাপার৷ কেননা, এই কি-ওয়ার্ডস এর প্রতিযোগীর সংখ্যা অনেক বেশি৷

২.লং টেইল কি-ওয়ার্ডস (Long Tail Keywords)

লং টেইল কি-ওয়ার্ডস (Long Tail Keywords) এটি মূলত তিনের অধিক শব্দের সমষ্টি৷ উদাহরণস্বরূপ : ‘ইউটিউব দিয়ে অনলাইন থেকে আয়’৷ এটি শর্ট টেইল কি-ওয়ার্ড থেকে অনেক বেশি নির্দিষ্ট এবং এটি সার্চ ভলিউম বেশি হয়ে থাকে৷

সুতরাং, গুগলে Rank করার জন্য শর্ট টেইল কি-ওয়ার্ডস ব্যবহার করা চেয়ে লং টেইল কি-ওয়ার্ডস ব্যবহার বেশি সহজ ও কার্যকর৷

কোথায় কি-ওয়ার্ডস (Keywords ) ব্যবহার করব?

উপযুক্ত কি-ওয়ার্ডস গুলো বাছাই করার পর এগুলোকে আর্টিকেল বা কনটেন্ট- এর ভেতরে রেখে অপ্টিমাইজড করতে হবে৷

এজন্য, আপনি আপনার প্রাথমিক কি-ওয়ার্ডস ( Primary Keywords )টি ব্লগ পোস্টের শিরোনামে (Title) রাখতে পারেন৷ সবসময় শিরোনামের (Title) প্রথমে প্রাথমিক কি-ওয়ার্ডস ( Primary Keywords )টি রাখার চেষ্টা করবেন৷ফলে ভালো কাজ করে প্রাথমিক কি-ওয়ার্ডস ( Primary Keywords )টি.

আরো পড়ুনঃ   Udemy এর ১৯৯ ডলারের SEO কোর্স ফ্রি নিয়ে নিন আর হয়ে যান Seo এক্সপার্ট

এছাড়া আপনি আপনার কি-ওয়ার্ডস ( Keywords )টি Permalink, H2 tags, Image ALT tags এবং Search Description এ রাখবেন৷
অধিকন্তু, আপনি আপনার ব্লগের আর্টিকেলের শুরুতে প্রাসঙ্গিক কি-ওয়ার্ডস ( Keywords ) ব্যবহার করবেন ফলে সার্চ ইঞ্জিন সহজে আপনার আর্টিকেলের বিষয়বস্তু বুঝতে পারবে৷ ফলে আপনার আর্টিকেল বা পোস্টটি তারাতাড়ি খুঁজে পাবে৷

সবগুলো কাজ করলে আপনাকে অন পেজ এসইওর জন্য অনেক সাহায্য করবে৷

কী ওয়ার্ড কী? কী ওয়ার্ড রিসার্চ এসইও (SEO) এর জন্য কেন গুরুত্বপূর্ণ?

কি-ওয়ার্ডস রিসার্চ (Keywords Research) করার কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস

১. সবসময় লং টেইল কি-ওয়ার্ডস (Long Tail Keywords) নিয়ে কাজ করবেন, কেননা এর প্রতিযোগীর সংখ্যা কম এবং র্যাংক Rank করাও অত্যন্ত সহজ৷ যদিও কম ভিজিটর পাবেন,তবে আপনার প্রত্যাশিত ট্রাফিক পাবেন৷

২. Google Keyword Planner বা Ubersuggest অথবা Samrush এর মত টুল আপনি কি-ওয়ার্ডস (Keywords ) রিসার্চের জন্য ব্যবহার করবেন যেগুলো সত্যিই আপনাকে ব্যাপক সাহায্য করবে৷

৩.যখন আপনি কোনো আর্টিকেলে গুগল থেকে ভিজিটর পাবেন,তখন ঐ একই বিষয়ে প্রাসঙ্গিক আরও আর্টিকেল লিখবেন যাতে ভিজিটর আরও গভীর তথ্য পায়৷

৪.সবসময় আপনার ব্লগের বিষয়ভিত্তিক নিশের উপর আর্টিকেল লেখার চেষ্টা করবেন৷

৫.আপনি আপনার প্রতিযোগীর র্যাংক (rank)করা
কি-ওয়ার্ডস ( Keywords ) গুলোর Keyword Difficulty, Search Volume, CPC, Competition ইত্যাদি তথ্য বিস্তারিত জানবেন৷ এজন্য আপনি Semrush এর শরণাপন্ন হতে পারেন৷

আরও পড়ুন : ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার উপায়

গুগল সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে কিভাবে কি-ওয়ার্ডস ( Keywords ) খুঁজব?

১. আপনার ব্লগের নিশ বা বিষয়ভিত্তিক প্রাসঙ্গিক কি-ওয়ার্ডস ( Keywords ) গুলো নোট করুন

প্রথমত, আপনি আপনার টপিক প্রাসঙ্গিক কি-ওয়ার্ডস ( Keywords ) গুলোর একটি তালিকা তৈরি করুন যেগুলো আপনি গুগলে র্যাংক (rank) করাতে চাচ্ছেন৷

২.আপনার কি-ওয়ার্ডস ( Keywords ) গুলো বিশ্লেষণ করুন

পূর্বে তালিকাকৃত কি-ওয়ার্ডস গুলো Google Search এ গিয়ে লিখুন,দেখবেন আরও প্রাসঙ্গিক কি-ওয়ার্ডস ( Keywords ) চলে আসবে যেগুলো মানুষ খুঁজে থাকে৷

৩.শর্ট টেইল কি-ওয়ার্ডস এবং লং টেইল কি-ওয়ার্ডস সনাক্ত করুন

আরো পড়ুনঃ   ফ্রী হোস্টিং ও ডোমেইন অফার | 5 GB cPanel Hosting FREE

পূর্বে আমরা শর্ট টেইল কি-ওয়ার্ডস এবং লং টেইল কি-ওয়ার্ডস সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি৷ যেখানে বলেছি শর্ট টেইল কি-ওয়ার্ডস নিয়ে কাজ করে গুগলে র্যাংক (rank) করা খুব কষ্টসাধ্য এবং লং টেইল কি-ওয়ার্ডস নিয়ে কাজ করা অনেক সহজ র্যাংক (rank) করা৷

সুতরাং, শর্ট টেইল কি-ওয়ার্ডস গুলো বাদ দিন যেগুলোতে ২-৩ টি শব্দ রয়েছে৷ তবে নিশ্চিত হোন, আপনি যে লং টেইল কি-ওয়ার্ড বাছাই করেছেন সেগুলোতে মূল শব্দ বা Head term রয়েছে৷

উদাহরণস্বরুপ: ‘ইউটিউব দিয়ে অনলাইন থেকে আয়’৷

এখানে ‘ অনলাইন থেকে আয় ‘ হলো মূল শব্দ৷ এটি হলো নির্দিষ্ট এবং এর ভিজিটরও প্রত্যাশিত বা টার্গেটকৃত৷ এই ধরনের কি- ওয়ার্ডস ( Keywords) খুব সহজে র্যাংক (rank) করে৷

Keyword Density বজায় রাখা

সবশেষে, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ হলো সঠিক keyword density বজায় রাখা৷

কারণ যখন ক্রলারস crawlers আপনার আর্টিকেল ক্রল crawl করবে তখন তারা স্থির করবে আপনার আর্টিকেল কী সম্পর্কে এবং কত কি-ওয়ার্ড থাকা উচিত র্যাংক করার জন্য keyword density থেকে৷

কিন্তু এটা মনে রাখবেন ‘ আপনার কনটেন্ট যদি বেশি কি-ওয়ার্ড দিয়ে অপ্টিমাইজড করেন তবে এসইওতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে ফলাফল stuffing এর জন্য

keyword density ১-১.১৫% এর মধ্যে রাখা উচিত৷

যদি আপনি ওয়ার্ডপ্রেস (WordPress) দিয়ে ব্লগ তৈরি করে থাকেন,তবে আপনি Yoast SEO প্লাগিং ব্যবহার করতে পারেন,যেটি আপনার নির্দিষ্ট আর্টিকেলের Keyword density দেখাবে৷ এছাড়া এটি আপনাকে অন পেজ অপটিমাইজেশনেও সহায়তা করবে৷

শেষ কথা :

উপরোক্ত কারণেই কি-ওয়ার্ডস রিসার্চ (Keywords Research) এসইও (SEO) এর জন্য এত গুরুত্বপূর্ণ এবং আপনাকে অবশ্যই সঠিক কী-ওয়ার্ডস রিসার্চ (Keywords Research) করা জানতে হবে৷ এজন্য আপনি Google Search ব্যবহার করতে পারেন৷

আশা করছি,”কী ওয়ার্ড কী? কী ওয়ার্ড রিসার্চ এসইও (SEO) এর জন্য কেন গুরুত্বপূর্ণ? ” ভালো লেগেছে আর্টিকেলটি৷ যদি এই বিষয়য়ে আরও প্রশ্ন থাকে তবে কমেন্ট করে জানাবেন৷

Please Share This Article

Leave a Comment