অনলাইনেই এখন চেক করুন নিজের জন্ম নিবন্ধন

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সকলে অনেক ভালো আছেন। আপনাদের কে আমাদের এই সাইটে আমার পক্ষ থেকে জানাই স্বাগতম। আজকের পোস্ট এ আমি আপনাদের সাথে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন কিভাবে চেক করবেন এই বিষয় টি নিয়ে কথা বলবো। তো চলুন দেরি না করে পোস্ট টি শুরু করে দেওয়া যাক।

 

আমাদের অনেকে আছেন যারা প্রথম দিকে নিবন্ধন করেছিলাম, তাদের জন্ম সনদটি হাতে লেখা হয়ে ছিল। ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা ও সিটি কর্পোরেশনে রেজিষ্টার বইতে আমাদের তথ্যসমূহ লিপিবদ্ধ হয়। এভাবেই আমাদের জন্ম নিবন্ধন টি তৈরি হয় এবং দেশের নাগরিকত্ব সার্টিফিকেট এর মাধ্যমে পাই।

কিন্তু পরবর্তীতে এসকল তথ্য অনলাইন ডাটা – বেইজ এ আনা হয়। আপনারা তো জানেন ই এখন সকল কিছু অনলাইন এর যুগ। তো এর পর থেকে ই জন্ম নিবন্ধন সনদকে ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন বা অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদ বলা হয়। এটা আসলে সম্পূর্ণ টাই আগের জন্ম নিবন্ধন এর মতো কাজ করে। তাও এটি আপনার এখন প্রয়োজন হবে।

 

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন চেক করার নিয়ম

অনলাইনে এ জন্ম নিবন্ধন চেক করা যায়, তবে সেটা শুধু নাম দিয়ে সম্ভব না। অনলাইনে আপনি শুধু মাত্র জন্ম তারিখ ও আগের জন্ম নিবন্ধন নম্বর দিয়েই জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে পারবেন। এর জন্য প্রথমে সরকার প্রদত্ত এই everify.bdris.gov.bd ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে হবে। এর পর, আপনার ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন ও জন্ম তারিখ দিয়ে সার্চ করলে আপনার জন্ম নিবন্ধন তথ্য দেখতে পারবেন।

তবে আমরা যারা আগে নিজেদের জন্ম নিবন্ধন করেছিলাম সেগুলো তে অনেকের ই ছিলো ১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নাম্বার। আর অনলাইনে চেক করার জন্য আপনার প্রয়োজন হবে ১৭ ডিজিটের একটি নাম্বার। তো এখন কথা হলো এখন আমি আমার জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ১৬ ডিজিট থেকে ১৭ ডিজিটে কিভাবে রুপান্তর করবো। তো এটা করা অনেক সহজ। এটা করার জন্য নিচে আমার বলা টিপস টি ফলো করুন।

 

জন্ম নিবন্ধন ১৭ ডিজিট করার নিয়ম

জন্ম নিবন্ধন ১৬ ডিজিট থেকে ১৭ ডিজিট করার জন্য আপনার পূর্বের ১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বর এর শেষ ৫ টি ডিজিটের আগে একটি শুন্য (০) লাগিয়ে দিবেন। মানে হলো প্রথম ১১ ডিজিটের পর ১২ তম ডিজিট টি শুন্য (০) দিবেন এর পর বাকি ৫ টি আগের ডিজিট দিয়ে দিবেন। এভাবে আপনি যেকোনো ১৬ ডিজিট এর জন্ম নিবন্ধন নাম্বার কে ১৭ ডিজিট এ রুপান্তর করতে পারবেন।

উদাহরণ স্বরূপ আপনার আগের জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ছিলোঃ ২০০২৩৫৯০৭৬৫২৪৫৬৭ (১৬ ডিজিট)

তাহলে এটাকে ১৭ ডিজিট করার জন্য এভাবে লিখতে হবেঃ ২০০২৩৫৯০৭৬৫২৪৫৬৭ (১৭ ডিজিট)

এখানে আমি যেখানে শূণ্য (০) যোগ করেছি সেখানে বোল্ড করে দিয়েছি যাতে আপনাদের বুঝতে সুবিধা হয়।

 

জন্ম নিবন্ধন নাম্বার কোন টি কী?

জন্ম সনদের ১৭ ডিজিটের মধ্যে প্রথম ৪ ডিজিট ব্যক্তির জন্ম সাল এবং শেষ ৬ ডিজিট ব্যক্তিগত পরিচিতি নম্বর। যেহেতু, পূর্বের জন্ম সনদে শেষ ৫ ডিজিট ব্যক্তিগত পরিচিতি নম্বর ছিল, সেটাকে ৬ ডিজিট করার জন্য শুরুতে একটি ০ যোগ করতে হবে।

 

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন চেক করার নিয়ম

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করা আছে কিনা দেখার উপায় এখানে দেখে নিন। অনলাইনে জন্ম সনদ যাচাই করণ পদ্ধতি খুবই সহজ। যদি আপনার কম্পিউটার না থাকে, আপনি চাইলে মোবাইলে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে পারবেন।

১. ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন কার্ড যাচাই করতে, আপনার মোবাইলের গুগল ক্রোম এপ টি ওপেন করুন। অনলাইনে বার্থ সার্টিফিকেট চেক করতে প্রঘমে everify.bdris.gov.bd ওয়েবসাইটে চলে যান।

২. উক্ত সাইটে যাওয়ার পর একটি পেইজ পাবেন। সেখানে ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বর, জন্ম তারিখ দিয়ে ও ক্যাপচা থাকবে সেটা পূরণ করে জন্ম নিবন্ধন চেক বা ভেরিভাই বাটনে ক্লিক করুন।

৩. যদি আপনার জন্ম নিবন্ধনটি ডিজিটাল হয় এবং অনলাইন ডেটাবেইজে থাকে, তাহলে আপনাকে আপনার অনলাইন জন্ম সনদ দেখিয়ে দিবে। আপনারা চাইলে সেটা ডাউনলোড করর সেটাকে প্রিন্ট করে নিতে পারবেন।

 

তো বন্ধুরা আশা করি পোস্ট টি আপনাদের কাছে ভালো লেগেছে। ভালো লেগে থাকলে কিন্তু অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। আর এরকম পোস্ট পেতে প্রতিদিন ভিজিট করতে থাকুন আমাদের এই সাইট টি। আবার দেখা হবে পরবর্তী কোনো পোস্ট এ। সে পর্যন্ত সকলে ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন। আল্লাহ হাফেয।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top