বিকাশ রিওয়ার্ডে ক্যাশব্যাক ও বোনাস নেয়ার উপায়

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সকলে অনেক ভালো আছেন। আপনাদের কে আমাদের এই সাইটে আমার পক্ষ থেকে জানাই স্বাগতম। আজকের পোস্ট এ আমি আপনাদের সাথে বিকাশ রিওয়ার্ড এই বিষয় টি নিয়ে কথা বলবো। তো চলুন দেরি না করে পোস্ট টি শুরু করে দেওয়া যাক।

 

বিকাশ রিওয়ার্ড ফিচারটি বিকাশে যুক্ত হয়েছে বেশ অনেকদিন হলো। নিয়মিত বিকাশ ব্যবহারকারীদের একাউন্টে পয়েন্ট যোগ হলেও এই বিকাশ রিওয়ার্ড ব্যবহার করার নিয়ম সম্পর্কে অনেক ব্যবহারকারী জানেন না। এই পোস্টে বিকাশ রিওয়ার্ড পয়েন্ট ব্যবহার থেকে শুরু করে এই ফিচার সম্পর্কে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানতে পারবেন।

 

বিকাশ রিওয়ার্ড কি?

বিকাশ এর বিভিন্ন সেবা ব্যবহার করে বিকাশ রিওয়ার্ড পাওয়া যায়, যা ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরনের সুবিধা নেওয়া যায়। মূলত বিকাশ এর সকল সেবা, যেমনঃ ক্যাশ আউট, রিচার্জ, ইত্যাদি ব্যবহার করলে বিকাশ একাউন্টে যোগ হবে বিকাশ রিওয়ার্ড পয়েন্ট। বিকাশ অ্যাপে প্রবেশ করে উপরে ডানদিকের কর্নারে বিকাশ আইকনের পাশে থাকা ট্রফি আইকনে ট্যাপ করে বিকাশ রিওয়ার্ড সেকশনে প্রবেশ করতে পারবেন।

 

বিকাশ রিওয়ার্ড লেভেল

বিকাশ রিওয়ার্ড এর ক্ষেত্রে মোট ৬টি লেভেল রয়েছে। ব্যবহার ও পয়েন্টের উপর ভিত্তি করে একজন ব্যবহারকারী পরবর্তী লেভেলে এগিয়ে যাবেন। বিকাশ রিওয়ার্ড এর লেভেলসমূহ হলোঃ ব্রোঞ্জ, সিলভার, টাইটেনিয়াম, গোল্ড, প্লাটিনাম, ডায়মন্ড।

উল্লেখিত প্রতিটি লেভেল একটির পর একটি আনলক করা যাবে। প্রতিবার লেভেল আপগ্রেড এর ক্ষেত্রে পাওয়া যাবে এক্সক্লুসিভ রিওয়ার্ড। অর্থাৎ লেভেল আপগ্রেডের সাথে সাথে আনলক হয়ে যাবে নতুন নতুন নতুন রিওয়ার্ড এর সুবিধা।

 

বিকাশ রিওয়ার্ড পয়েন্ট ব্যবহার করার নিয়ম

ইতোমধ্যে আমরা জেনেছি বিকাশে যেকোনো লেনদেনের জন্য বিকাশ রিওয়ার্ড পয়েন্ট পাওয়া যায়। এখন কথা হচ্ছে এসব বিকাশ রিওয়ার্ড জমা তো হচ্ছে, কিন্তু এগুলো ব্যবহার করবেন কিভাবে? বেশ সহজ, চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে বিকাশ রিওয়ার্ড পয়েন্ট ব্যবহার করতে হয়।

আরো পড়ুনঃ   মোবাইল নাম্বার দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র বের করার নিয়ম

বিকাশ রিওয়ার্ড পয়েন্ট জমা হয় লেনদেনের মাধ্যমে। এই রিওয়ার্ড পয়েন্ট ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরনের অফার ও সুবিধা নেওয়া যাবে। এসব অফার ও সুবিধা ক্লেইম করতে অবশ্যই প্রয়োজনীয় রিওয়ার্ড লেভেলে থাকতে হবে। কোনো রিওয়ার্ড ক্লেইম করার পর উক্ত রিওয়ার্ড ক্লেইমের জন্য প্রয়োজনীয় পয়েন্ট একাউন্ট থেকে কেটে নেওয়া হবে।

চলুন একটি উদাহরণের মাধ্যমে বিকাশ রিওয়ার্ড পয়েন্ট ব্যবহারের বিষয়টি বুঝে নেওয়া যাক। ধরুন আপনি একজন বিকাশ ব্যবহারকারী ও আপনার বিকাশ রিওয়ার্ড লেভেল হলো সিলভার। এখন আপনাকে “BDT 20 Cashback on Mobile Recharge” নামে একটি অফার দেখানো হলো যার জন্য 2500 পয়েন্ট খরচ করতে হবে।

অর্থাৎ এই অফার উপভোগ করতে হলে আপনার ২৫০০ রিওয়ার্ড পয়েন্ট কেটে নেওয়া হবে। অফারটি সফলভাবে নিতে পারলে আপনি মোবাইল রিচার্জ করলে ২০টাকা ক্যাশব্যাক পাবেন। বিকাশে রিওয়ার্ড লেভেল অনুযায়ী বিভিন্ন পয়েন্টের জন্য বিভিন্ন অফার থাকে।

১. বিকাশ রিওয়ার্ড অফার ব্যবহার করতে প্রথমে বিকাশ অ্যাপে প্রবেশ করে উপরে ডানদিকের কর্নারে থাকা বিকাশ আইকনের পাশে থাকা ট্রফি আইকনে ট্যাপ করুন।

২. এরপর আপনার পছন্দের অফার খুঁজে বের করুন ও তার পাশে থাকা “Claim” অথবা “সংগ্রহ করুন” অপশনে ট্যাপ করুন।

৩. এরপর ক্লেইম কনফার্ম করতে “Yes” সিলেক্ট করুন।

৪. “Claim” বা “সংগ্রহ” করার পর অফারে উল্লেখিত সমপরিমাণ পয়েন্ট কেটে নেওয়া হবে।
এরপর উল্লেখিত অফার অনুযায়ী নির্দিষ্ট সেবাটি ব্যবহারের সময় উল্লেখিত রিওয়ার্ড পেয়ে যাবেন।

 

বিকাশ রিওয়ার্ড নিয়মাবলী

বিকাশ রিওয়ার্ড ফিচারের কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম আছে। এসব নিয়ম বিকাশ রিওয়ার্ড পয়েন্ট ক্লেইম করা থেকে ব্যবহার পর্যন্ত প্রযোজ্য। চলুন জেনে নেওয়া যাক বিকাশ রিওয়ার্ড এর শর্ত ও নিয়মাবলী সম্পর্কে।

দেখে মনে হতে পারে বিকাশ রিওয়ার্ড পয়েন্ট ব্যবহার করার পর রিওয়ার্ড লেভেল আবার আগের লেভেলে ফিরে যাবে। কিন্তু ব্যাপারটি এভাবে কাজ করেনা।

আরো পড়ুনঃ   গুগল এডসেন্স এডস লিমিট হওয়ার মূল কারন কি? এডসেন্সে এডস লিমিট থেকে বাঁচার উপায়

মূলত একবার রিওয়ার্ড পয়েন্ট ব্যবহার করলে শুধুমাত্র পয়েন্ট কেটে নেওয়া হয়, রিওয়ার্ড লেভেল এর ক্ষেত্রে কোনো ধরনের পরিবর্তন আসেনা। তবে আপনার লেনদেন কমে গেলে বা বিকাশ চাইলে রিওয়ার্ড লেভেলে পরিবর্তন আসতে পারে।

কোনো রিওয়ার্ড ক্লেইম করার পর উক্ত রিওয়ার্ডে উল্লেখিত ট্রানজেকশন এর মাধ্যমে রিওয়ার্ড উপভোগ করা যাবে। অর্থাৎ আপনার রিওয়ার্ড এর ক্ষেত্রে যদি রিচার্জে ক্যাশব্যাক এর অফার থাকে, তাহলে অফার ক্লেইম এর পর উল্লেখিত এমাউন্টের রিচার্জে ক্যাশব্যাক পাওয়া যাবে। আবার যথেষ্ট পরিমাণ পয়েন্ট থাকলে একই রিওয়ার্ড অফার একাধিকবার ক্লেইম করার সুযোগ রয়েছে।

উল্লেখ্য যে একবার অফার ক্লেইম করার পর উক্ত অফার ক্যান্সেল করার কোনো অপশন নেই। ক্লেইম করা অফার ব্যবহারের পর তবেই এর পরের অফার ব্যবহার করা যাবে। অর্থাৎ নির্দিষ্ট সময়ে শুধুমাত্র একটি অফার একটিভ থাকবে ও উক্ত অফার ব্যবহার করেই এরপরের ক্লেইম করা অফার ব্যবহার করা যাবে।

 

রিওয়ার্ড পয়েন্ট কতদিন থাকে

এবার প্রশ্ন হলো ক্লেইম করার পর কোনো রিওয়ার্ড অফার এর মেয়াদ কতদিন? মূলত আপনার উচিত হবে কোনো অফার ক্লেইম করার পর যত দ্রুত সম্ভব লেনদেনটি করে অফারটি নিয়ে নেয়া। বর্তমান পলিসি অনুসারে ক্লেইম করার পর অফারটির মেয়াদ ফুরায় না। এই পলিসি যেকোনো সময় চাইলে চেঞ্জ করতে পারে বিকাশ।

তবে নির্দিষ্ট মেয়াদ রয়েছে বিকাশ রিওয়ার্ড পয়েন্ট এর। বিকাশ রিওয়ার্ড পয়েন্ট এর মেয়াদ ১২টি ক্যালেন্ডার মাস। ১ জানুয়ারি, ২০২২-এর আগে অর্জিত রিওয়ার্ড পয়েন্টও ব্যবহার না করা হলে, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২২-এ তার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। তাই মেয়াদ থাকা অবস্থায় একাউন্টে জমা থাকা রিওয়ার্ড পয়েন্ট দ্বারা রিওয়ার্ড অফার ক্লেইম করে ফেলুন।

 

তো বন্ধুরা আশা করি পোস্ট টি আপনাদের কাছে ভালো লেগেছে। ভালো লেগে থাকলে কিন্তু অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। আর এরকম পোস্ট পেতে প্রতিদিন ভিজিট করতে থাকুন আমাদের এই সাইট টি। আবার দেখা হবে পরবর্তী কোনো পোস্ট এ। সে পর্যন্ত সকলে ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন। আল্লাহ হাফেয।

Please Share This Article

Leave a Comment