Wednesday, November 30, 2022

ফ্রিল্যান্সিং কি? ফ্রিল্যান্সিং যেভাবে করতে হয়?

ফ্রিল্যান্সিং কি? ফ্রিল্যান্সিং যেভাবে করতে হয়?

বর্তমান সময়ে ফ্রিল্যান্সিং নাম শুনিনি এরকম লোক খুঁজে পাওয়া খুবই মুশকিল। কারণ আপনিও হয়তো অনলাইনে বিভিন্ন সময় একবার না একবার হলেও ফ্রিল্যান্সিং নাম শুনেছেন। ফ্রিল্যান্সিং হলো অন্যান্য কাজের যে সম্পূর্ণ স্বাধীন এবং মুক্ত পেশা।

কিছু মাত্র অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে যে কেউ ফ্রিল্যান্সিং কাজের সাথে নিজেকে জড়িয়ে ফেলতে পারে। ফ্রিল্যান্সিং কাজ করে অনেকে নিজের ক্যারিয়ার সামলাতে খুব সহজেই পারে। তাছাড়া অন্যান্য কাজের চেয়ে বর্তমান সময়ে এই প্রযুক্তির যুগে ক্লান ছাড়া খুবই জরুরী।

বিশেষ করে বর্তমানকে অনলাইনের যৌগ বলা হয়ে থাকে অনেক সময়। এই অনলাইনের যুগে সামাজিক যত কাজকর্ম সবকিছু অনলাইনে করা সম্ভব। যত দিন যাচ্ছে ততই মানুষ অনলাইনমুখী হয়ে পড়ছে এবং অনলাইনে সকল কাজকর্ম করতে ইচ্ছুক হয়। তাই সবাই ঘরে বসে সকল কাজকর্ম করতে আগ্রহী।

ফ্রিল্যান্সিং জিনিসটা আসলে কি?

ফ্রিল্যান্সিংঃ ফ্রিল্যান্সিং হল মুক্ত একটি পেশা বা স্বাধীন পেশা বলতে পারেন। ঘরে বসে ক্লায়েন্ট খোঁজে তাদের সার্ভিসগুলো নিজে কমপ্লিট করে, ক্লায়েন্টের কাছ থেকে অনলাইনে তাদের থেকে টাকা নিজের পকেট এ নেওয়া কে ফ্রিল্যান্সিং বলা হয়।

অনেকে আবার এই ফ্রিল্যান্সিংকে নিজের ক্যারিয়ার হিসেবে। আবার কাজ করার জন্য অফিসে যেতে হয় না ঘরে বসেই ফ্রিল্যান্সিং কাজ করা যায়। অনলাইনের সংযোগ এবং ভালো মানের কম্পিউটার ইত্যাদি এর মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং কাজ করা সম্ভব।

আপনার ইচ্ছা অনুযায়ী যখন খুশি তখনই চাইলে ফ্রিল্যান্সিং কাজ করতে পারেন। আপনার যখন ইচ্ছা তখন ক্লায়েন্ট খোঁজে তাদের কাজগুলো কমপ্লিট করতে পারেন। তবে যখন কাজটি নিবেন তাদের কাছ থেকে তখন অবশ্যই চুক্তির মাধ্যমে সব কিছু আপনাকে করতে হবে।

ফ্রিল্যান্সিং এর সুবিধা গুলো কি কি?

ফ্রিল্যান্সিং কাজের সবচেয়ে বড় একটি সুবিধা এই কাজটি সাধারণত স্বাধীন। এই কাজ করে আপনাকে অন্যের সাহায্য বা অন্যের বকাঝকা এর কোন সমস্যা নেই।

ফ্রিল্যান্সিং কাজ আপনি খুব সহজেই ঘরে বসেই করতে পারবেন। শুধুমাত্র ভালো মানের একটি কম্পিউটার কিংবা ল্যাপটপ ইত্যাদি এবং ইন্টারনেট কানেকশন থাকলে, আপনি এই কাজ ঘরে বসেই করতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং কাজের সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে অফিসে যাওয়ার জন্য কোন চিন্তা করতে হয় না। অন্যদিকে আপনার অন্যের ইচ্ছা অনুযায়ী কাজকর্ম বাধ্যতামূলক নয়।

অন্যদিকে আপনি অন্যান্য কাজের পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং কাজ করতে পারেন। অন্যান্য কাজের চেয়ে এই ফ্রিল্যান্সিং কাজের ইনকাম একটু বেশি হয়ে থাকে।

ফ্রিল্যান্সিং এই কাজ করার কোন লিমিট নেই। যত বেশি কাজ করবেন আপনার ততই বেশি ইনকাম হবে। এবং মাসে মাসে একাধিক টাকা পাওয়ার সম্ভাবনা প্রচুর পরিমাণে।

অন্যদিকে ফ্রিল্যান্সিং কাজের সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে কম সময়ে অধিক পরিমানে আয় করা সম্ভব হয়। এবং এই কাজ ঘরে বসে করা সম্ভব। এই কাজের জন্য কোন ধরনের ইনভেস্টমেন্ট প্রয়োজন নেই।

ফ্রিল্যান্সিং আসলে কাদের জন্য?

ফ্রিল্যান্সিংঃ মূলত যারা ধৈর্যশীল এবং অন্যদেরও কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। লোভ-লালসা মানুষের ধোকা দেওয়ার ইচ্ছা নাই। নিজের অভিজ্ঞতা কে সঠিকভাবে কাজে লাগে পৃথিবীতে বসবাস করতে চাই। বিশেষ করে তাদের জন্য এই ফ্রিল্যান্সিং এই কাজ।

ফ্রিল্যান্সিং কাজের জন্য যাদের অভিজ্ঞতা রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ইংলিশে দক্ষ। অথবা কাজের প্রতি মনোযোগ ক্লায়েন্ট খুঁজে ধৈর্যশীল হয়ে কাজ করা। ইত্যাদি সহ যে ব্যক্তি নিজের শক্তি কাজে লাগিয়ে ফ্রিল্যান্সিং করতে ইচ্ছুক তাদের জন্যই ফিল্যান্সিং কাজ।

সুতরাং বন্ধুগণ আপনারা হয়তো ইতিমধ্যে ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে অনেক ধারণা পেয়ে গিয়েছেন। ফ্রিল্যান্সিং সে ব্যক্তি করতে পারে যার ইচ্ছা শক্তির ধৈর্য মানুষকে ধোকা এবং সততার সাথে কাজ করতে পারে। নিশ্চয় আপনারা এতক্ষণে ফ্রিল্যান্সিং আসলে কাদের জন্য সেটি নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন।

ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য ইংরেজি জানা বাধ্যতামূলক কি?

ফ্রিল্যান্সিং কাজের জন্য ইংরেজিঃ বন্ধুগণ ইংরেজি ভাষাটি বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি ভাষা। এমনকি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে সাধারণত ইংরেজি ভাষা বেশি জনপ্রিয়। বেশিরভাগ লোক এই ইংরেজি ভাষা ব্যতীত কথা বলে না। এখন কথা হল ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য ইংরেজি জানা আসলে কি বাধ্যতামূলক?

সাধারনত, গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন ও ভিডিও এডিটিং এন্ড এনিমেশন বিষয়ে কাজ করার ক্ষেত্রে ভালোভাবে ইংরেজি জানা না থাকলেও চলবে। শুধুমাত্র আপনার এই টপিকের উপরে মোটামুটি ইংরেজি জানা থাকলে ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবেন।

আর অন্যান্য রাইটার সহ বেশিরভাগ কাজের ক্ষেত্রে ইংরেজি দক্ষতা খুবই প্রয়োজন হয়। ইংরেজি ভাষার পরিপূর্ণতা জ্ঞান অর্জন না করে আপনারা অন্যান্য কাজগুলো করতে অনেকটা অসুবিধা হবে। সুতরাং ইংরেজি ভাষার দক্ষতা পরিপূর্ণ অর্জন না করে অনেক ধরনের কাজ আপনি করতে পারবেন না।

ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোতে কি করতে হবে?

ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে কাজঃ প্রিয় বন্ধুগণ এতক্ষণে হয়তো বা ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে আপনারা অনেক ধরনের ধারণা পেয়ে গিয়েছেন। এখন আসল কথা যে ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট এ কাজ করতে হয়। এবং কিভাবে এই ফ্রিল্যান্সিং কাজ করে টাকা উত্তোলন করা যায় ইত্যাদি।

বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় কয়েকটি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট নিচে দেওয়া হল

  • freelancer.com
  • upwork.com
  • guru.com
  • fiber.com

ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটের কাজ হল প্রোফাইল কমপ্লিটঃ উপরোক্ত মার্কেটপ্লেসে আপনারা জয়েন হয়ে যে কেউ ফ্রিল্যান্সিং কাজ শুরু করে দিতে পারেন। যদি আপনার কাছে পরিপূর্ণ অভিজ্ঞ লানসিং সম্পর্কে ধারনা থাকে তাহলে।

এবং উপরোক্ত মার্কেটপ্লেসগুলোতে প্রথমে আপনাকে প্রোফাইল কমপ্লিট করে রাখতে হবে। এবং প্রোফাইলে আপনার বায়োডাটা আর বিভিন্ন ধরনের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে অনেক তথ্য দিতে হবে। যেন যেকোনো ক্লায়েন্ট আপনাকে তাদের জরুরী প্রয়োজনীয় সার্ভিসগুলো আপনাকে দিতে চাই।

ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে কাজ হল পোর্টফোলিও তৈরিঃ পর্টফলিও কমপ্লিট করতে হবে আপনার মার্কেটপ্লেসের একাউন্টে। যখন আপনি কোন একটি ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে কাজ শুরু করবেন। তখন আপনার পোর্টফোলিও তৈরি করতে হবে।

এবং সেটি অবশ্যই আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা সহ পূর্বের কোন অভিজ্ঞতা আছে কিনা সকল বিষয়ে। আপনার পরিপূর্ণ তথ্যগুলো সেখানে অ্যাড করতে হবে। যেটার মাধ্যমে ক্লায়েন্ট আপনাকে তাদের যেকোনো প্রয়োজনীয় কাজ দিতে স্বচ্ছন্দ বোধ করে।

ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে কাজ হল প্রজেক্ট খোঁজাঃ শুরুতে হয়তোবা আপনি যখন কোনো মার্কেটপ্লেসে ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য কাজ শুরু করবেন। তখন হয়তোবা আপনার প্রজেক্ট এর কোন কাজ নাও আসতে পারে। কারণ আপনি একেবারে নতুন কিছু জানেন না আপনাকে কেউ চেনেনা।

সুতরাং তখন আপনার উচিত বিভিন্ন ধরনের প্রজেক্ট গুলো খোঁজা। আপনি পরিপূর্ণ যেকোনো ধরনের প্রজেক্ট নিয়ে কাজ শুরু করে দিবেন। তবে তার জন্য তো অবশ্যই আপনার প্রজেক্ট খুঁজতে হবে তাইনা! সুতরাং আশাকরি প্রজেক্ট খোঁজার বিষয়টি বুঝতে সক্ষম হয়েছেন।

ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইটে কাজ হল অপেক্ষা করাঃ অনেকে ফ্রিল্যান্সিং কাজ শুরু করার জন্য মার্কেটপ্লেসগুলোতে সুন্দরভাবে আসে। কিন্তু পরবর্তীতে তারা অনেকে ব্লাঞ্চিং কাজ করতে গিয়ে অপেক্ষা করেনা ছোটাছুটি করে কাজ খুঁজতে থাকে। এক সময় তারা কাজ খুঁজে না পেয়ে হতাশ হয়ে কাজ করা বন্ধ করে।

তাই আপনার উচিত ধৈর্য ধরে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে অপেক্ষা করা। সকল বিষয়ে অপেক্ষা করা খুবই জরুরি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এমনকি আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে যান সেখানেও কিন্তু আপনার এই ধৈর্য এবং অপেক্ষা করতেই হবে। তা না হলে আপনি কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারবেন না।

ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইটে কাজ হল কাজ সম্পূর্ণ ভাবে কমপ্লিট করাঃ যখন আপনি কোন ক্লায়েন্টের কাজ পেয়ে যাবেন তখন, যত দ্রুত সম্ভব তত দ্রুত কাজ কমপ্লিট করে দেওয়ার চেষ্টা করবেন। দেখবেন যে আপনার কাজের প্রতি আগ্রহ এবং ক্লায়েন্টরা খুশি হয়ে।

আপনার ওই ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে 5 স্টার রেটিং দিবে। এবং সেটা অন্য কাজের প্রতি আগ্রহ এবং জনপ্রিয়তার দিকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এবং তারা আরও অনেক ধরনের সার্ভিস উপভোগ করতে চাইবে এবং আপনাকে যেকোন কাজ দিয়ে দিবে। এবং অন্যান্য ক্লায়েন্টরা আপনার সম্পর্কে জেনে কাজ ভালো হলে, আপনার কাছে বিভিন্ন ধরনের কাজ দিবে।

ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে কাজ সর্বশেষে পেমেন্ট রিসিভ করাঃ যখন আপনি আপনার ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার পর, সাবমিট করবেন ক্লায়েন্টের কাছে তাদের সার্ভিস কমপ্লিট করে। তখন কিন্তু তারা আপনাকে খুশি হয়ে এক্সট্রা কিছু বোনাস হিসেবে কিছু টাকা দিতে পারে। অন্যদিকে আপনি সেই টাকা সহজে পেয়ে যাবেন।

এবং সর্বশেষে আপনি টাকাটা উত্তোলন করে নিতে পারবেন সেই ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট থেকে। তার জন্য অবশ্যই নির্দিষ্ট পরিমাণে আপনার একাউন্টে টাকা থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এবং ধৈর্য্য সহ্য এবং সততা নিয়ে মার্কেটপ্লেসগুলোতে আপনাকে কাজ করতে হবে। সর্বশেষে আশাকরি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে টাকা উত্তোলনের বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন।

ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ শেষ কথা?

প্রিয় বন্ধুরা ফ্রিল্যান্সিং হল সারা বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় কাজের অন্যতম একটি স্বাধীন পেশা। যে কেউ চাইলে কিছুমাত্র অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে মার্কেটপ্লেসগুলোতে জয়েন হওয়ার পর। সেখানে নিজের ইচ্ছা শক্তি এবং সাধারণ কম্পিউটার কিংবা ল্যাপটপ ইন্টারনেট কানেকশন দিয়ে।

সহজে সেখানে ফ্রিল্যান্সিং কাজগুলো শুরু করতে পারে। তবে অবশ্যই তার জন্য নিজের দক্ষতা অভিজ্ঞতা এবং নিয়ম নীতি সম্পর্কে পুরোপুরি ধারণা থাকতে হবে। এবং নিয়ম অনুযায়ী তাদের সাথে সদ্ব্যবহার সততার সাথে কাজ করতে হবে। সর্বোপরি আপনারা যে কোন একটি কোর্সের মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং শিখে।

পরিপূর্ণ অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে করতে পারেন। আশাকরি আমাদের আজকের ফ্রিল্যান্সিং আর্টিকেল থেকে বিভিন্ন ধরনের জানা অজানা অনেক কিছু জানতে পেরেছেন। আর্টিকেলটি ভালো লাগলে অবশ্যই বন্ধুদের কাছে আর্টিকেলটি শেয়ার করতে ভুলবেন না। সর্বোপরি সবাই ভাল থাকুন সুস্থ থাকুন এবং নিরাপদে থাকুন। এটি করার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here